পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মুখে ঝামা ঘষে দিলেন রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের কনিষ্ঠতম সদস্য বিদিশা

ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের প্রথম সচিব বিদিশা মৈত্র রাষ্ট্রপুঞ্জে ইমরানের বক্তব্যের এমন জবাব দিয়েছেন যা নিয়ে শুধু ভারত নয় সারা বিশ্বে হইচই পড়ে গিয়েছে।

ইমরান খানের ৫০ মিনিটের দীর্ঘ ভাষণের জবাবে তিনি মাত্র ৫ মিনিটেই পাকিস্তানী প্রধানমন্ত্রীর স্বরূপ গোটা দুনিয়ার কাছে তুলে ধরেছেন। বিদিশা মৈত্র বলেন, “রাষ্ট্রসংঘে পাক প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক এবং যাঁরা নিজেদের দেশে সন্ত্রাসের কারখানা চালাচ্ছে তাঁদের থেকে কোনো পরামর্শের দরকার নেই। নিজেদের সর্বদা পরমাণু শক্তিধর দেশ বলে জাহির করা এবং তার সাথে ক্রমাগত পরমাণু যুদ্ধের বীভৎসতার যে হুমকি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী দিয়ে থাকেন তা কখনোই ‘‌রাষ্ট্রনায়কোচিত নয়।’ তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতার সময় যে দেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ২৩ শতাংশ ছিল, তা বর্তমানে কমে ৩ শতাংশে কি ভাবে নেমে এলো।

পাকিস্তান কি ভাবে হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ সহ অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষদের ওপর অত্যাচার করে তাঁদের অধিকার কেড়ে নেয় এবং ধর্মান্তকরণের মতন ঘৃণ্য প্রচেষ্টা চালায়, তা নিয়েও তিনি ইমরান খানকে বিঁধতে ছাড়েননি।

তার বক্তব্যে এক সময় বিদিশা ইমরান খানকে তার পুরো নাম ইমরান খান নিয়াজি নামে ডেকেছিলেন। আর তার সাথে ইমরানকে এও স্মরণ করিয়ে দেন জেনারেল নিয়াজি’র পরিণতির কথা, যিনি একাত্তরের যুদ্ধের সময় ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে ৯১০০০ পাকিস্তানী সেনা সমেত আত্মসমর্পণ করেছিলেন।

জানুন ভারতের এই নতুন কূটনীতিবিদ বিদিশা মৈত্র সম্পর্কে !


বিদিশা মৈত্র ইন্ডিয়ান ফরেন সার্ভিস (আইএফএস) এর ২০০৯ ব্যাচের আইএএস। ২০০৯ সালে তিনি বিদেশমন্ত্রকের সেরা ট্রেনি অফিসার হিসাবে মেডেল পেয়েছিলেন। ২০০৮ সালে তিনি সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন, এই বড় পরীক্ষায় তিনি সারাদেশে ৩৯ তম স্থান অর্জন করেছিলেন। বর্তমানে তিনি রাষ্ট্রসংঘের কনিষ্ঠতম সদস্য হিসেবে ভারতের প্রথম সচিব নিযুক্ত আছেন। এর বাইরে তাকে SCO (Shanghai Cooperation Organization) সামলানোর দায়িত্বও দেওয়া হয়েছে।

Related posts

Leave a Reply